ঢাকা ০৪:১১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
Logo তিনদিন ধরে চলবে ঘূর্ণিঝড় রেমাল Logo পায়রা-মোংলায় ৭ নম্বর, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর সংকেত Logo এমপি আনার হত্যার রহস্য উদঘাটন,খুনিরা চিহ্নিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী Logo এমপি হত্যাকান্ডে জড়িত সবাইকে বিচারের মুখোমুখি করা হবে: ডিবি প্রধান Logo ডিসি-ইউএনওদের জন্য কেনা হচ্ছে ২৬১ বিলাসবহুল গাড়ি Logo এডিপি অনুমোদন Logo বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুত যুক্তরাষ্ট্রের নাসাউ কাউন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম Logo তাপপ্রবাহের সতর্কবার্তা জারি করল আবহাওয়া অফিস Logo গুলিবিদ্ধ হয়ে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী Logo “স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকে রক্ষা পেতে ৮০% এরও বেশি বিড়ি শ্রমিক চান বিকল্প কর্মসংস্থান”

সুন্দরবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস

স্বাধীনবাংলা রির্পোটঃ
  • প্রকাশের সময় : ১০:৫২:৩৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ মে ২০২৪ ১৮ বার পঠিত
সংবাদটি শেয়ার করুন :

স্বাধীনবাংলা রির্পোটঃ

বাগেরহাটের শরণখোলায় পূর্ব সুন্দরবনের গহিন বনে লাগা ভয়াবহ আগুন নিয়ন্ত্রণে একযোগে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস, কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী। রোববার (৫ মে) সকাল ৬টা থেকে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ শুরু করে তারা। সুন্দরবনের মাটির ওপরে থাকা বিভিন্ন গাছের পাতার স্তূপের মধ্যে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। ইতিমধ্যে, দেড় কিলোমিটার এলাকাজুড়ে প্রায় ৫০টি জায়গায় আগুন ছড়িয়ে পড়েছে।

শনিবার (৪ মে) দুপুর ৩টার দিকে পূর্ব সুন্দরবনের চাদপাই রেঞ্জের আমুরবুনিয়া এলাকায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। অনেক চেষ্টার পরেও সন্ধ্যা নাগাদ যন্ত্রপাতি নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে ব্যর্থ হন ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। গহীন বন হওয়ায় আগুন নেভানোর কাজে সময় লাগছে বলে জানিয়েছেন সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা কাজী মোহাম্মদ নূরুল করিম।

তিনি বলেন, সুন্দরবনে অগ্নিকাণ্ডের পরপরই বন বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা সেখানে উপস্থিত হন। কিন্তু গভীর বনে ঢুকতে না পারায় সন্ধ্যা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি। এখনও সেখানে আগুন জ্বলছে। সকাল ৬টার দিকে আবারও আগুন নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম শুরু করেছে ফায়ার সার্ভিস। এই কাজে ফায়ার সার্ভিসকে সার্বিক সহায়তা দিচ্ছেন কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনীর সদস্যরা।

তিনি আরও বলেন, কীভাবে এবং কতটুকু জায়গা জুড়ে আগুন লেগেছে সেটি আমরা এখনও জানতে পারিনি। তবে এ বিষয়ে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন মোংলার স্টেশন কর্মকর্তা মোহাম্মদ কায়মুজ্জামান বলেন, আগুন লাগার খবর পেয়ে মোরেলগঞ্জ ও মোংলা ফায়ার স্টেশনের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আগুনের সূত্রপাত যেখানে সেখান থেকে পানির দূরত্ব প্রায় দুই কিলোমিটার। যার কারণে অগ্নিনির্বাপণের কাজে সময় লাগছে।

আগুনের বর্তমান পরিস্থিতির বিষয়ে তিনি বলেন, বনের শুকনো পাতায় বাতাস লেগে আগুন বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বর্তমানে ওই এলাকায় কালো ধোঁয়া দেখা যাচ্ছে। আগুন নতুন এলাকায় ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

এসবিএন

 

ট্যাগস :

সুন্দরবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস

প্রকাশের সময় : ১০:৫২:৩৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৫ মে ২০২৪
সংবাদটি শেয়ার করুন :

স্বাধীনবাংলা রির্পোটঃ

বাগেরহাটের শরণখোলায় পূর্ব সুন্দরবনের গহিন বনে লাগা ভয়াবহ আগুন নিয়ন্ত্রণে একযোগে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস, কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী। রোববার (৫ মে) সকাল ৬টা থেকে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ শুরু করে তারা। সুন্দরবনের মাটির ওপরে থাকা বিভিন্ন গাছের পাতার স্তূপের মধ্যে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। ইতিমধ্যে, দেড় কিলোমিটার এলাকাজুড়ে প্রায় ৫০টি জায়গায় আগুন ছড়িয়ে পড়েছে।

শনিবার (৪ মে) দুপুর ৩টার দিকে পূর্ব সুন্দরবনের চাদপাই রেঞ্জের আমুরবুনিয়া এলাকায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। অনেক চেষ্টার পরেও সন্ধ্যা নাগাদ যন্ত্রপাতি নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে ব্যর্থ হন ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। গহীন বন হওয়ায় আগুন নেভানোর কাজে সময় লাগছে বলে জানিয়েছেন সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা কাজী মোহাম্মদ নূরুল করিম।

তিনি বলেন, সুন্দরবনে অগ্নিকাণ্ডের পরপরই বন বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা সেখানে উপস্থিত হন। কিন্তু গভীর বনে ঢুকতে না পারায় সন্ধ্যা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি। এখনও সেখানে আগুন জ্বলছে। সকাল ৬টার দিকে আবারও আগুন নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম শুরু করেছে ফায়ার সার্ভিস। এই কাজে ফায়ার সার্ভিসকে সার্বিক সহায়তা দিচ্ছেন কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনীর সদস্যরা।

তিনি আরও বলেন, কীভাবে এবং কতটুকু জায়গা জুড়ে আগুন লেগেছে সেটি আমরা এখনও জানতে পারিনি। তবে এ বিষয়ে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন মোংলার স্টেশন কর্মকর্তা মোহাম্মদ কায়মুজ্জামান বলেন, আগুন লাগার খবর পেয়ে মোরেলগঞ্জ ও মোংলা ফায়ার স্টেশনের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আগুনের সূত্রপাত যেখানে সেখান থেকে পানির দূরত্ব প্রায় দুই কিলোমিটার। যার কারণে অগ্নিনির্বাপণের কাজে সময় লাগছে।

আগুনের বর্তমান পরিস্থিতির বিষয়ে তিনি বলেন, বনের শুকনো পাতায় বাতাস লেগে আগুন বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বর্তমানে ওই এলাকায় কালো ধোঁয়া দেখা যাচ্ছে। আগুন নতুন এলাকায় ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

এসবিএন